মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
✆ন্যাশনাল কল সেন্টার:৩৩৩| স্বাস্থ্য বাতায়ন:১৬২৬৩|আইইডিসিআর:১০৬৬৫|বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন:০৯৬১১৬৭৭৭৭৭
সংবাদ শিরোনাম
আজারবাইজানে ফিদে ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ অনুর্ধ্ব-১৬ দাবা অলিম্পিয়াড ১ অক্টোবর থেকে মার্কস অ্যাক্টিভ স্কুল দাবা প্রতিযোগিতা-২০২২ : ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ চ্যাম্পিয়ন দূর্ভোগ এড়াতে অভিভাবকদের জন্য বসার স্থান করলেন এমপি মোছলেম উদ্দীন শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল রাষ্ট্রনায়ক শিগগিরই তিস্তা চুক্তি সই হবে: আশা প্রধানমন্ত্রীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান: জরিমানা ৫ হাজার বোয়ালখালীতে দুই শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু শুক্র-শনিবার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ: সরকারি অফিস সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৩টা মুলকুতুর রহমান সড়ক মহল্লা উন্নয়ন পরিষদ কমিঠি গঠিত আজ জাতীয় শোক দিবস: ‘বাংলাদেশের জনক’ বা বঙ্গবন্ধু বলাটা নিতান্তই কম বলা

সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে আগামী ২ সপ্তাহ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

স্টাফ রিপোর্টার: করোনা সংক্রমণ বাড়ায় আগামী দুই সপ্তাহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কনফারেন্স রুমে সাংবাদিক সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।এদিন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সব স্কুল, কলেজ ও সমপর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজ নিজ ক্ষেত্রে অনুরূপ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।জাহিদ মালেক বলেন, আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি না, সে কারণে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে।এরইমধ্যে ঢাকা শহরের হাসপাতালের শয্যা প্রায় এক তৃতীয়াংশ পূর্ণ হয়ে গেছে। এভাবে সংক্রমণ বাড়লে ঢাকার সব হাসপাতালেও স্থান সংকুলান হবে না।স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, আমরা স্কুল কলেজ খুলে দিয়েছিলাম, দেশের সমস্ত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চলমান রেখেছিলাম। আমরা এখন লক্ষ্য করেছি স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থী আক্রান্ত হচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের আক্রান্ত হওয়াটা আশঙ্কাজনক। সেই কারণে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে তার সম্মতি সাপেক্ষে আমরা স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী দুই সপ্তাহ স্কুল, কলেজ ও ইউনিভার্সিটি বন্ধ থাকবে। যেন আমাদের ছেলে মেয়ে আক্রান্ত না হয়। দুই সপ্তাহ পর পরিস্থিতি দেখে নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। তিনি আরও বলেন, সংক্রমণ কমানোর জন্য আমরা আরও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করছি। বিভিন্ন সামাজিক রাজনৈতিক এবং ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অনেক মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। সেই কারণে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোনো অনুষ্ঠানে একশোর বেশি লোক অংশগ্রহণ করতে পারবে না। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের প্রত্যেকের টিকার সনদ এবং করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট থাকতে হব। যেকোনো ধরনের যানবাহনেও একই নিয়ম প্রযোজ্য হবে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে যেতে হলেও টিকা কার্ড এবং করোনা টেস্ট রিপোর্ট থাকতে হবে। এটা বইমেলার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। বইমেলা কিভাবে পরিচালিত হবে তারও একটি নির্দেশনা রয়েছে। অর্ধেক জনবল দিয়ে অফিস আদালত পরিচালনা করা হবে, সেই সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটার নির্দেশনাও শিগগিরই দেওয়া হবে। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশিদ আলমসহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনান্য কর্মকর্তারা।

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন


Archive

© All rights reserved © 2021 Dainiksomor.net
Design & Developed BY N Host BD