মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
✆ন্যাশনাল কল সেন্টার:৩৩৩| স্বাস্থ্য বাতায়ন:১৬২৬৩|আইইডিসিআর:১০৬৬৫|বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন:০৯৬১১৬৭৭৭৭৭
সংবাদ শিরোনাম
বোয়ালখালী ধোরলার ইউসুফ মিয়া’র জানাজা ও দাফন সম্পন্ন সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতলো বাংলাদেশ ঈদুল আজহা ১৭ই জুন চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর মহাবিপৎ সংকেত, ১২ ফুট উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা, সন্ধ্যায় আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় রিমাল বোয়ালখালী উপজেলা : আনারস,হেলিকপ্টার ও মোটর সাইকেল প্রতীক এর মধ্যে লড়াইয়ের আভাস ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে চসিকের ৬ তলা নগর ভবনের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন বাধ্যতামূলক কৃষির মাধ্যমে ২ থেকে ২.৫ কোটি লোকের কর্মসংস্থান করে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা সম্ভব নানা আয়োজনে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের আনন্দ সম্মিলন সম্পন্ন শ্রমিকদের ঠকিয়ে অর্থনীতির বিকাশ নিশ্চিত করা যাবে না বোয়ালখালী ফোরাম চট্টগ্রামের উদ্যোগে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার স্যালাইন বিতরণ সম্পন্ন

শেখ হাসিনা: এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ান লিডার উল্লে­খযোগ্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

সৈয়দ সাহাব উদ্দিন শামীম, সম্পাদক দৈনিক সমর :
সমগ্র বাংলাদেশ যখন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আয়োজনের কর্মযজ্ঞে মুখরিত ঠিক সেই সময় জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত কর্মকান্ডে সুযোগ্য নেতৃত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড’-এ ভূষিত হলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। International Organisation of Migration (আইওএম) এবং জাতিসংঘ সিস্টেম দ্বারা সমর্থিত ‘গ্লোবাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট মোবিলিটি’। জাতিসংঘ সিস্টেম হলো জাতিসংঘ এবং জাতিসংঘের অনেকগুলো তহবিল, কর্মসূচি এবং বিশেষায়িত সংস্থা, যার প্রত্যেকটির নিজস্ব কাজের ক্ষেত্র, নেতৃত্ব এবং বাজেট রয়েছে। জাতিসংঘ নিজে এই পৃথক ‘জাতিসংঘ সিস্টেম’ সত্তার সাথে এর কাজ সমন্বয় করে থাকে।
গত ১ ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখ দুবাইতে অনুষ্ঠিত COP২৮ এর সাইডলাইনে একটি উচ্চ-স্তরের প্যানেলের সময় এই পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি রাষ্ট্রদূত ডেনিস ফ্রান্সিস এবং আইওএম-এর মহাপরিচালক অ্যামি পোপ উচ্চ-পর্যায়ের প্যানেলের সহ-আয়োজক ছিলেন। (COP এর পূণর্রূপ Conference of Parties) । এটি আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলন যা প্রতি বছর জাতিসংঘ কর্তৃক আয়োজিত হয়। যে দেশগুলি COP এ যোগ দিয়েছে তারা পালাক্রমে একটি বার্ষিক সম্মেলনের আয়োজন করে থাকে)।
এর আগে ২০২১ সালের নভেম্বরে ঈঙচ ২৬ সম্মেলনের সময় ব্রিটিশ British Broadcasting Corporation (বিবিসি) শেখ হাসিনাকে “The voice of the Vulnerable” হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। জাতিসংঘ এবং কমনওয়েলথ-এ দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠিকে কমনওয়েলথ ও এসডিজি’র ভবিষ্যত অংশীদারিত্বের মূলধারায় নিয়ে আসতে তিনি শক্তিশালী নিয়ামকের ভূমিকা পালন করে চলেছেন।
এবারের অর্থাৎ ২০২৩ সালের ১ ডিসেম্বর ‘এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড’-টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি উল্লেখযোগ্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এবং জলবায়ু গতিশীলতা এবং এর থেকে উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দেশের অব্যাহত সমর্থনের বহিঃপ্রকাশ। জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার অনেকগুলো উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। যার মধ্যে জলবায়ু প্রভাবের কারণে বাস্তুচ্যুত ৪,৪০০ পরিবারকে পুনর্বাসনের জন্য কক্সবাজারে বিশ্বের বৃহত্তম বহুতল সামাজিক আবাসন প্রকল্প নির্মাণ অন্যতম।
বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলা কক্সবাজারে এখন মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে আগত ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। এছাড়া শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ তার অবিচ্ছিন্ন জলবায়ু চুক্তি এবং উদ্যোগের মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের খারাপ প্রভাবগুলি নিয়ন্ত্রণ এবং সীমিত করার ক্ষেত্রে বিশ্ব নেতৃত্বের মর্যাদায় আসীন হয়েছে।
অষ্টম সর্বাধিক জনবহুল দেশ হওয়ায়, বাংলাদেশ বিশ্ব উষ্ণায়ন-প্ররোচিত প্রাকৃতিক দুর্যোগের শীর্ষস্থানে রয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস এবং আবহাওয়া ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। গত ১৪ বছরে জলবায়ু পরিবর্তনের ব্যাপক প্রভাব এবং ঘূর্ণিঝড়, বজ্রপাত, জলোচ্ছ্বাস, অতিবৃষ্টি, খরাসহ অন্যান্য চরম আবহাওয়ায় আগাম সতর্কতা এবং আগাম পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে জীবন ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি বহুলাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।
উল্লেখ্য, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় আজ বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে রোল মডেল। বিজ্ঞান ভিত্তিক আবহাওয়া ও জলবায়ুর উন্নততর পূর্বাভাস প্রদানের মাধ্যমে ‘রূপকল্প-২০৪১’ বাস্তবায়নে ‘বাংলাদেশ আঞ্চলিক আবহাওয়া ও জলবায়ু সেবা প্রকল্প (কম্পোনেন্ট-এ)’ চলমান রয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে আবহাওয়া পরিষেবার মান বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে।
জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগজনিত ক্ষয়ক্ষতি প্রশমনকে প্রাধান্য দিয়ে ১০০ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ এবং অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার। বর্তমানে আধুনিক প্রযুক্তির কারণে বিশ্বে প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি মানবসৃষ্ট দুর্যোগও বাড়ছে। দুর্যোগের আগাম সতর্কবার্তা ও দৈনন্দিন আবহাওয়া বার্তা জানতে মোবাইলে ‘১০৯০’ নম্বরে টোল ফ্রি সার্ভিস চালু করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষি-আবহাওয়া পূর্বাভাস ও পরামর্শ সেবার মান উন্নয়নে সাতটি নতুন কৃষি- আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার স্থাপনসহ কৃষি- আবহাওয়া বিষয়ক গবেষণা কার্যক্রম জোরদার করেছে।
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে পাঁচটি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার, নয়টি ভূমিকম্প পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র এবং ১৪টি নদী বন্দরে নৌ-দুর্ঘটনা প্রশমনের লক্ষ্যে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ ও পূর্বাভাস কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। স্াপন করা হয়েছে তিনটি স্যাটেলাইট গ্রাউন্ড স্টেশন। দুইটি আধুনিক ডপলার রাডার স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। দেশের ১৩টি উপকূলীয় জেলায় স্যাটেলাইট টেলিফোনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আবহাওয়া ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গৃহীত এসকল পদক্ষেপ জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখছে।
এভাবে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্ব বাংলাদেশের জন্য জলবায়ু পরিবর্তন জনিত কর্মকান্ডের আন্তর্জাতিক অ্যাওয়ার্ড ও স্বীকৃতি বয়ে আনছে। জলবায়ু সংক্রান্ত কর্মকান্ডের অ্যাওয়ার্ড ছাড়াও শান্তি প্রতিষ্ঠা, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদান এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং ১৩টি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে সম্মানিত করেছে এবং ফ্রান্সের একটি বিশ্ববিদ্যালয় তাকে ডিপ্লোমা প্রদান করেছে।
এসবের বাইরেও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড, শান্তি ও স্থিতিশীলতার ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য শেখ হাসিনাকে বিশ্বের বিভিন্ন সংস্থা সম্মানিত করেছে।
জলবায়ু পরিবর্তন একটি খুবই কঠিন সমস্যা যা সমগ্র বিশ্বকে প্রভাবিত করছে। বিশ্বজুড়ে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা, যানবাহন, শিল্প এবং মানব ক্রিয়াকলাপের সাথে এটি আরও খারাপ হয়ে চলেছে। জলবায়ু-প্ররোচিত ঘটনাগুলির ক্রমবর্ধমান সমস্যাগুলো মোকাবেলা করা প্রয়োজন, অন্যথায় বিশ্বকে মারাত্মক পরিণতির মুখোমুখি হতে হবে। ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক তাপমাত্রা, হিমবাহ গলনের ফলে সৃষ্ট দূষণ, বায়ু দূষণ এবং সম্পদের সংকটের ক্ষেত্রে বিশ্ব অনেক সমস্যা দেখেছে।
এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সঠিক পদক্ষেপ না নিলে ৮০ বছরে জলবায়ু পরিবর্তন প্রায় ৮ কোটি মানুষের প্রাণ কেড়ে নেবে। অপরদিকে, জলবায়ু পরিবর্তন ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের ২১ কোটি ৬০ লোককে বাস্তুচ্যুত করতে পারে, এর মধ্যে ৪ কোটি এককভাবে দক্ষিণ এশিয়ার। বাংলাদেশে আমাদের জনসংখ্যার ২০ শতাংশ উপকূলীয় অঞ্চলে বাস করে। জলবায়ু পরিবর্তন জনিত সমস্যার কারণে এই বিশাল জনগোষ্ঠী ঝুঁকিতে রয়েছে।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যাঁরা বাস্তুচ্যুত বা আটকে পড়েছেন, তাঁদের মৌলিক পরিষেবা, সামাজিক সুরক্ষা ও জীবিকার বিকল্পগুলোয় প্রবেশাধিকার থাকা দরকার। তাঁদের আশ্রয়দাতা সম্প্রদায়ের ওপর বিরূপ প্রভাবগুলোও একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক পদ্ধতিতে মোকাবিলা করা দরকার।
সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততার অনুপ্রবেশ, ঘন ঘন বন্যা ও প্রবল ঘূর্ণিঝড় তাঁদের জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতি (ফোর্সড ডিসপে­সমেন্ট) এর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। এ ধরনের স্থানচ্যুতি আমরা যা ভাবি, তার চেয়ে দ্রুতগতিতে ঘটছে। অতএব, আগামী দিনে, জলবায়ু পরিবর্তন এবং বৈশ্বিক উষ্ণায়নের এই পর্যায় চলতে থাকলে, বিশ্ব মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং অষ্টম বৃহত্তম জনবহুল দেশ হওয়ায় বাংলাদেশ বিপজ্জনক প্রভাবের সম্মুখীন হবে।
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বাস করে যে মানবগতিশীলতার ওপর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব আন্তর্জাতিক আলোচ্যসূচিতে উচ্চস্থান দেওয়া উচিত।
বাংলাদেশ বিষয়টির কার্যকর সমাধানের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরতে আইওএম এবং অন্য অংশীদারদের সঙ্গে একত্রে কাজ করছে। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের জনগণের আশা ‘আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করবে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা মোকাবেলার বিভিন্ন কর্মসূচি এবং সার্বিকভাবে দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত থাকবে’।

লেখক : চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও বিশ্ব দাবা সংস্থার জোন ৩.২ এর প্রেসিডেন্ট ও দৈনিক সমর পত্রিকার সম্পাদক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন


Archive

© All rights reserved © 2021 Dainiksomor.net
Design & Developed BY N Host BD