মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
✆ন্যাশনাল কল সেন্টার:৩৩৩| স্বাস্থ্য বাতায়ন:১৬২৬৩|আইইডিসিআর:১০৬৬৫|বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন:০৯৬১১৬৭৭৭৭৭
সংবাদ শিরোনাম
আজারবাইজানে ফিদে ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ অনুর্ধ্ব-১৬ দাবা অলিম্পিয়াড ১ অক্টোবর থেকে মার্কস অ্যাক্টিভ স্কুল দাবা প্রতিযোগিতা-২০২২ : ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ চ্যাম্পিয়ন দূর্ভোগ এড়াতে অভিভাবকদের জন্য বসার স্থান করলেন এমপি মোছলেম উদ্দীন শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল রাষ্ট্রনায়ক শিগগিরই তিস্তা চুক্তি সই হবে: আশা প্রধানমন্ত্রীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান: জরিমানা ৫ হাজার বোয়ালখালীতে দুই শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু শুক্র-শনিবার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ: সরকারি অফিস সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৩টা মুলকুতুর রহমান সড়ক মহল্লা উন্নয়ন পরিষদ কমিঠি গঠিত আজ জাতীয় শোক দিবস: ‘বাংলাদেশের জনক’ বা বঙ্গবন্ধু বলাটা নিতান্তই কম বলা

প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০৪১ বাস্তবায়নে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা অগ্রসেনা হিসেবে কাজ করে যাবেন : প্রধানমন্ত্রী

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

ঢাকা,বাসস : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রেক্ষিত পরিকল্পনা-২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ায় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ‘অগ্রসেনা’ হিসেবে কাজ করে যাবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন।
তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে ’৪১-এর প্রেক্ষিত পরিকল্পনা বাস্তবায়নে অগ্রসেনা হিসেবে কাজ করে যাবেন।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে ‘ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স-২০২১ (এনডিসি) ’ এবং ‘আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স-২০২১ (এএফডবি­উসি )’ এর গ্রাজুয়েশন সেরিমনিতে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।
তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মিরপুর ক্যান্টনমেন্টস্থ ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজ (ডিএসসিএসসি) শেখ হাসিনা কমপ্লে­ক্সে সংযুক্ত হয়ে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা যে কোন ক্রান্তিলগ্নে সর্বোচ্চ আত্মত্যাগে সদা প্রস্তুত থাকেন। তাঁরা বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ মোকাবিলায় সন্মুখ সারির যোদ্ধা হিসাবে নানাবিধ কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের এইটুকু বলবো- আমাদের ’৪১-এর যে প্রেক্ষিত পরিকল্পনা বাস্তবায়ন তারই অগ্রসেনা হিসেবে আপনারা কাজ করে যাবেন, আমি এটা আশা করি। আর ২০৭১ সালে স্বাধীনতার শতবর্ষ পূর্তি হবে, সেটাও আমাদের মাথায় রেখে এগিয়ে যেতে হবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ আর পিছিয়ে যাবেনা, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ ইনশাআল্লাহ সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা গড়ে তুলবো।
এবারে এন.ডি.সি. -তে ২৭ জন বিদেশী সামরিক সদস্যসহ মোট ৮৮ জন এবং এ.এফ.ডবি­উ.সি. -তে মোট ৫৫ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করেছেন।
তিন বাহিনী প্রধান এবং এনডিসি কমানড্যান্ট অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আমাদের সরকারের উদ্দেশ্য ছিল দেশ-বিদেশের উচ্চ পর্যায়ের সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাদের জন্য একটি শীর্ষ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলা। আজ আমি সন্তুষ্টির সাথে বলতে পারি যে, ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ তার অভীষ্ঠ লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম হয়েছে। দেশ-বিদেশের উচ্চপদস্থ সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাগণ এ প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব ও দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছেন। বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত করে তোলার পাশাপাশি বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রগুলোর সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছে।
তিনি বলেন, আমি জেনে আনন্দিত যে, এ পর্যন্ত ২৪টি বন্ধুপ্রতিম দেশের ৩৮৩ জন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য এনডিসিতে উচ্চ শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। সময়ের পরিক্রমায় এনডিসি কোর্সের সদস্য সংখ্যা এবং একাডেমিক কার্যক্রমের কলেবর বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমান সীমিত সম্পদ, অবকাঠামো ও জনবল দিয়েও এনডিসি সফলভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করছে- এজন্য আমি এনডিসি’র কমান্ড্যান্ট এবং তার টিমকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। নিকট ভবিষ্যতে এসকল সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে উঠার জন্য তাঁর সরকার একটি বাস্তব-সম্মত পরিকল্পনা গ্রহণ করবে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন।
এবারে এন.ডি.সি. -তে ২৭ জন বিদেশী সামরিক সদস্যসহ মোট ৮৮ জন এবং এ.এফ.ডব্লিউ.সি. -তে মোট ৫৫ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করেছেন, উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, আপনাদের অনেকেই কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যে দীর্ঘ প্রায় একবছর কঠোর পরিশ্রম ও অনুশীলন করেছেন। এনডিসিতে সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং জাতীয় নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ এবং ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা সম্পর্কে জ্ঞানার্জন করেছেন, যা নিঃসন্দেহে আপনাদের কর্মক্ষেত্রে নেতৃত্ব অর্জনে সহায়ক হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, আমি আশা করি, এই কোর্স দু’টিতে বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর সামরিক সদস্যগণের সাথে আমাদের সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তা সর্বোপরি আমাদের প্রকৃতি ও মানুষের সঙ্গে যে নিবিড় মিথস্ক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে তা ভবিষ্যতে অটুট থাকবে।
তিনি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথাও পুনরায় স্মরণ করিয়ে দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সশস্ত্র বাহিনী দুর্যোগ মোকাবিলার পাশাপাশি দেশের অবকাঠামো এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও একনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলাসহ শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং শান্তি নিশ্চিতকরণে দক্ষতা ও নিষ্ঠার পরিচয় দিয়ে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। আমরা আবারো সর্বোচ্চ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে গৌরবের স্থানটি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছি।
দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার যেসব প্রতিষ্ঠান, যেখানে বার বার ক্যু হয়েছে- সেখানে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং যুগের সাথে তাল মেলাতে এর আধুনিকায়ন তাঁর লক্ষ্য ছিল, এমন অভিমত ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, স্বাধীন দেশ হিসেবে আমাদের সশস্ত্র বাহিনী বিশ্ব সভায় মর্যাদা নিয়ে চলবে সেই আকাঙ্ক্ষা নিয়েই রাষ্ট্র পরিচালনা শুরু করি।
সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে তাঁর সরকারের পদক্ষেপের অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী, ‘ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ’,‘মিলিটারি ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স এ্যান্ড টেকনোলজি’ এবং ওয়ার কলেজ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, ১৯৯৯ সালে ‘বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস সাপোর্ট অপারেশন ট্রেনিং’ এবং ‘আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজ’ প্রতিষ্ঠা করি। আমরাই প্রথম ২০০০ সালে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীতে নারী অফিসার নিয়োগ করি।
তিনি পর পর তিনবার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হওয়ায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, এরফলে একটু সময়ও পেয়েছি দেশের সেবা করার। প্রশিক্ষিত ও যুগোপযোগী সামরিক বাহিনী গঠনের লক্ষ্যে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করে বাস্তবায়ন করছি। জাতির পিতার ’৭৪ সালে প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতিমালা অনুসরণে আমরা ‘ফোর্সেস গোল-২০৩০’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়ন, সম্প্রসারণ ও উন্নয়নে অনেক দূর অগ্রসর হয়েছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৬ সালে ‘বাংলাদেশ পিস বিল্ডিং সেন্টার’ প্রতিষ্ঠা করেছি। ‘জাতীয় প্রতিরক্ষানীতি, ২০১৮’ প্রণয়ন করেছি। আমরা সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করেছি। ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরিতা নয়’- জাতির পিতার এই মূলমন্ত্রকে পররাষ্ট্রনীতি হিসেবে মেনে চলছি।
তিনি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে অন্য দেশের বাহিনীর সঙ্গে আমাদের সশস্ত্রবাহিনী যাতে তাল মিলিয়ে চলতে পারে সেজন্য এতে আধুনিক যুদ্ধাস্ত্র সংযোজন এবং এর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে তাঁর সরকার প্রদত্ত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাও তুলে ধরেন।
জাতির পিতার রেখে যাওয়া স্বল্পোন্নত দেশ থেকে দেশকে উন্নয়নশীল দেশের গ্রাজুয়েশন অর্জন করানোয় সরকারের সাফল্য তুলে ধরে সরকার প্রধান বলেন, সম্প্রতি জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশ ঘোষণা করার প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহণ করেছে। এখানে যে কোন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমরা সদা প্রস্তুত।
তিনি বলেন, আমরা অর্থনৈতিক অগ্রগতির মানদন্ডে বিশ্বের প্রথম ৫টি দেশের মধ্যে স্থান করে নিয়েছি। বর্তমানে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৪১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আমরা দারিদ্র্যের হার ২০ দশমিক ৫ শতাংশের নীচে নামিয়ে এনেছি এবং মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৫৫৪ মার্কিন ডলারে উন্নীত করেছি। আর্থ-সামাজিক সকল সূচকে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেছি। করোনা না আসলে আমরা আরো এগিয়ে যেতে পারতাম।
করোনা মহামারীর সময়ও দেশের সকল মেগা প্রকল্পের কাজ এগিয়ে যাওয়ার তথ্য উলে­খ করে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারের সময়ে যোগাযোগ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ এবং ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’-প্রতিষ্ঠার কথা উলে­খ করেন।
সেজন্যই এই করোনা মহামারীর মধ্যেও আমাদের আর্থসামাজিক অগ্রগতি বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছি, বলেন তিনি।
‘মুজিবশতবর্ষ’ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের প্রসংগ টেনে তিনি বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে ‘টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট’ অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে দ্বিতীয় প্রেক্ষিত পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শুরু করেছি। শতবর্ষ মেয়াদি ‘বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন শুরু করেছি।
জাতির পিতার নেতৃত্বে আমাদের গৌরবময় স্বাধীনতা অর্জন এবং ’৭৫’র বিয়োগান্তক অধ্যায় স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বিজয় অর্জন করেছিলাম, বিজয়ী জাতি হিসেবে বিশ্বে একটা মর্যাদা পেয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য ’৭৫ এ জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে ’৭১ এর পরাজিত শক্তির এদেশীয় দোসররা আমাদের গৌরবময় স্বাধীনতাকে ম্লান করে। দেশের স্বাভাবিক উন্নয়নকে স্তব্ধ করে দেয়। মহান স্বাধীনতার আদর্শ ও চেতনাকে ভূলুন্ঠিত করে।
অথচ মাত্র সাড়ে তিন বছরে জাতির পিতা যুদ্ধবিধ্বস্ত অবস্থা থেকে দেশকে টেনে তুলে আর্থসামাজিক উন্নয়নের পথে দেশকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যান বলেও তিনি উলে­খ করেন।
’৭৫ এর পর দেশে সামরিক জান্তার হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের রাজনীতির গোড়াপত্তনের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯ বার সামরিক বাহিনীতে ক্যু হয়েছে। বহু সামরিক অফিসার জোয়ান, সৈনিক, সাধারণ মানুষকে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে। অনেক পরিবার নিহত আপনজনের লাশের সন্ধান পায়নি। এমনই একটা অস্থিরতার মধ্যদিয়ে ২১টি বছর কেটেছে।
এরপর ’৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুণপ্রতিষ্ঠিত হয়। যেজন্য তাঁকে এবং পরিবারের প্রাণে বেঁচে যাওয়া ছোট বোন শেখ রেহানাকে ’৭৫ এর পর বিদেশে নাম পরিচয় গোপন রেখে রিফিউজি জীবন যাপনে বাধ্য হতে হয়। আবার দেশে ফিরেও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে অনেক ঘাত-প্রতিঘাত এবং সংগ্রামের মধ্যদিয়ে যেতে হয়, বলেন তিনি।
’৮১ সালে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে একরকম জোর করেই দেশে ফিরে আসার প্রসংগ উলে­খ করে বলেন, সে সময় তার বাবা, মা, ১০ বছরের ছোট ভাই রাসেল সহ ভাইদের এবং ভাতৃবধু সহ পরিবারের অন্য সদস্যদের হত্যাকারিরা এবং ’৭১ এর গণহত্যাসহ মানবতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধীরা ক্ষমতায় ছিল। তাদের কেউ কেউ মন্ত্রি বা উপদেষ্টা এবং জাতির পিতার খুনীরা বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরী লাভ করে পুরস্কৃত হয়েছিল। কারণ খুনের বিচার যেন না হতে পারে সেজন্য আইন করা হয়েছিল, খুনীদের ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) দেওয়া হয়েছিল।
শেখ হাসিনা বলেন, তেমনই একটা অবস্থার মধ্যে আমি জীবনকে বাজি রেখে বাংলাদেশে ফিরে এসেছিলাম, একটা লক্ষ্য নিয়ে এসেছিলাম যে স্বাধীনতার জন্য আমার বাবা সারাজীবন ত্যাগ স্বীকার করেছেন, জেল খেটেছেন, আমরা ভাই- বোনেরা বাবার স্নেহ বঞ্চিত থেকেছি, বাবার পাশে থেকে আমার মা আজীবন সংগ্রাম করেছেধতনাকে ফিরিয়ে আনা এবং বাংলাদেশকে জাতির পিতার আদর্শে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়েই আমার ফিরে আসা। আর সে সময় অধিকাংশ জনগণ তিমিরেই ছিল।

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন


Archive

© All rights reserved © 2021 Dainiksomor.net
Design & Developed BY N Host BD