বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৮ অপরাহ্ন

নোটিশ :
✆ন্যাশনাল কল সেন্টার:৩৩৩| স্বাস্থ্য বাতায়ন:১৬২৬৩|আইইডিসিআর:১০৬৬৫|বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন:০৯৬১১৬৭৭৭৭৭
সংবাদ শিরোনাম
বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইসহাক এর দাফন সম্পন্ন ঈদ মুবারক চট্টগ্রামে একুশের কণ্ঠ’র ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বান্দরবানে কম্বিং অপারেশন শুরু : সেনাপ্রধান শবেকদর সম্পর্কে কোরআন-হাদিসে যা বলা হয়েছে মক্কায় ব্যবসায়ী আলহাজ্ব আবদুল হাকিমের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল আমুচিয়া ইউনিয়নের ইমাম, মোয়াজ্জিনদের মাঝে প্রবাসী এমদাদুল ইসলামের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ জেলা প্রশাসকের নিকট বিপ্লবী তারকেশ্বর দস্তিদার স্মৃতি পরিষদ’র স্মারকলিপি প্রদান বোয়ালখালীতে জোরপূর্বক জায়গা দখলের পাঁয়তারা অনেকটা অভিমান নিয়েই যেন চলে গেলেন মোহাম্মদ ইউসুফ : ক্রীড়াঙ্গনে শোকের ছায়া

জীবন রক্ষাকারী ওষুধ সংকটের আশঙ্কা, এলসি করতে নানা জটিলতা

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

এস এম ইরফান নাবিল :
দেশের ওষুধ শিল্পের কাঁচামালের ৭০ শতাংশই আমদানি করতে হয়। বর্তমানে আমদানিকারকদের কাঁচামাল আনতে এলসি বা ঋণপত্র খুলতে সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এ কারণে জীবনরক্ষাকারী ওষুধের উৎপাদন ও সরবরাহে সংকট দেখা দেওয়ার উপক্রম হয়েছে। কাঁচামাল আমদানির ঋণপত্র খুলছে না ব্যাংকগুলো। আমদানিও করা যাচ্ছে না অনেক জরুরি ওষুধ। সমস্যার দ্রুত সমাধান চায় ওষুধ উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো। তারা বলছে, যে পরিমাণ কাঁচামালের মজুত আছে তাতে খুব বেশি হলে দুই থেকে তিন মাস চলতে পারে। তবে অনেক কোম্পানি ইতিমধ্যেই সংকটে পড়েছে। যার ফলে ব্যাহত হচ্ছে জীবনরক্ষাকারী ওষুধ উৎপাদন ও সরবরাহ। তবে সরকার জীবনরক্ষাকারী ওষুধ সরবরাহে যাতে সংকট দেখা না দেয় সেদিকে নজর দিতে নির্দেশ দিয়েছে।
এদিকে দেশে যেসব ওষুধ তৈরি হয় না সে সব ওষুধ আমদানি করতে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। এলসি করতে নানা জটিলতা। এ কারণে সময়মতো রোগীদের জীবনরক্ষাকারী ওষুধ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ক্যানসার, কিডনি, নিউমোনিয়া, ইনসুলিনসহ বিভিন্ন ধরনের ওষুধ আমদানির প্রয়োজন হয়। আমদানিকৃত ওষুধের মধ্যে ইনসুলিনসহ কিছু সংখ্যক ওষুধ বাংলাদেশে তৈরি হয়। কিন্তু বিদেশি ওষুধে রোগী দ্রুত সুস্থ হয়। কিছু দিনের মধ্যে এসব জীবনরক্ষাকারী ওষুধ আমদানি করতে না পারলে অনেক জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীদের জীবন মৃত্যুর ঝুঁকিতে পড়বে বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। অপরদিকে দেশে নিষিদ্ধ যেসব ওষুধ তা অনেক ডাক্তার প্রেসক্রিপশন করে থাকেন। এসব নিষিদ্ধ ওষুধের ব্যাপক চাহিদা থাকায় চোরাই পথে বা ল্যাগেজের মাধ্যমে দেশে প্রবেশ করছে। এই ওষুধ রাখার কারণে ওষুধ বিক্রেতারা জেল-জরিমানার শিকারও হন। তাদের বক্তব্য হলো, ব্যাপক চাহিদা থাকায় এসব ওষুধ তারা রোগীদের জীবনরক্ষার্থে রাখেন। এ প্রসঙ্গে একাধিক বিশেষজ্ঞ বলেন, বাজারজাতকৃত ওষুধের চেয়ে এই নিষিদ্ধ অনেক ওষুধ আছে, যা রোগী ব্যবহার করে দ্রুত আরোগ্য লাভ করেন। অপরদিকে বাজারজাতকৃত কোনো কোনো ওষুধের গুণমান নিয়েও প্রশ্ন আছে। এসব কারণে রোগীদের জীবন রক্ষার্থে ব্যবস্থাপত্রে তারা ঐ সব ওষুধ লিখে থাকেন। অনেক রোগী নিজ উদ্যোগে বিদেশ থেকেও এসব এনে সেবন করেন।

ফেইসবুকে নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য লিখুন


Archive

© All rights reserved © 2021 Dainiksomor.net
Design & Developed BY N Host BD